সোমবার ২৭ জুন ২০২২, ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাক্সবন্দি বাবার লাশ, পানি কমলে দাফন

প্রকাশিত : 03:36 PM, 22 June 2022 Wednesday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

ভয়াবহ বন্যায় ঘরবাড়ি পানিতে তলিয়ে যায় বাড়িঘর। রিকশাচালক ইব্রাহিম মিয়া পরিবারের লোকজন নিয়ে আশ্রয় নেন একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এর মধ্যে বার্ধক্যজনিত নানা রোগে আক্রান্ত ইব্রাহিমের বাবা আশরাফ আলী (৮৫) আশ্রয় কেন্দ্রে মারা যান। আশ্রয় কেন্দ্রে শুরু হয় বিলাপ। অতিবৃষ্টি, ঘনঘন বজ্রপাত এবং মিনিটে মিনিটে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ইব্রাহিম অসহায় হয়ে পড়েন। নৌকা না থাকায় বাবাকে নিতে পারেননি হাসপাতালে।

চারপাশে থই থই পানি। বাবার লাশ নিয়ে অপেক্ষা করেন বৃষ্টি ও পানি কমলে দাফন করবেন। কিন্তু বৃষ্টি তো কমার দূরের কথা বন্যার পানি আরো বাড়তে থাকে। পরে নিরুপায় হয়ে বাবার মরদেহ পলিথিনে মুড়ে বক্সের ভেতর রেখে কবরস্থানের খুঁটির সাথে বেঁধে রেখেছেন পাঁচদিন ধরে।

পানি কমলে দাফন করবেন এই আশায়।
জানা যায়, বন্যার সময় সাধারণত কোনোভাবে মরদেহ দাফন করতে না পারলে পানিতে ভাসিয়ে দেয়া হয়। কিন্তু নিজের বাবার মরদেহ বন্যার পানিতে ভাসিয়ে দেয়ার সাহস হয়নি তার। তাই পলিথিনে মুড়ে বাক্সবন্দি করে অপেক্ষা করছেন তিনি। এই হৃদয়বিদারক ঘটনাটি ঘটেছে সুনামগঞ্জ শহরতলীর সুরমা ইউনিয়নের ইব্রাহিমপুর গ্রামে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে আশ্রয়কেন্দ্রে থাকা ইব্রাহিম জানান, গত ১৭ই জুন (শুক্রবার) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় তার বাবা মারা যান। সর্বত্র বন্যার পানি থাকায় বাবার মরদেহ দাফন করতে না পারায় তিনি বাক্সবন্দি করে রেখেছেন।

ইব্রাহিম বলেন, ‘আব্বা মারা গেছেন। আমাদের কবরস্থান পানির নিচে। জানাজাও পড়ছি নৌকার ওপর। আমরা অসহায় হয়ে গেছি। এখন বসে আছি পানি কমলে বাবার লাশ কবরে দাফন করার জন্য।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT