শনিবার ১৩ আগস্ট ২০২২, ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাজার পরিস্থিতির উন্নতির জন্য সরকারের তরফ থেকে দেওয়া হয়েছে নানা প্রণোদনা তবুও

ক্রেতার নাগালের বাইরে বাজার

প্রকাশিত : 10:06 AM, 5 August 2022 Friday

গণঅধিকার নিউজ ডেস্কঃ

বাজার পরিস্থিতির উন্নতির জন্য সরকারের তরফ থেকে দেওয়া হয়েছে নানা প্রণোদনা। পাশাপাশি বিশ্ব বাজারেও কমেছে বিভিন্ন পণ্যের দাম। এসবের সুফল দেশের বাজারে নেই। কোনোভাবেই নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দর সাধারণ মানুষের নাগালে আসছে না। গত কয়েকদিনে চালসহ কিছু পণ্যের দাম বেড়েছে আরেক দফা। বাজারে ঊর্ধ্বমুখী দামে পণ্য কিনতে গিয়ে খেই হারাচ্ছেন নিম্ন আয়ের মানুষ। বাজারের উচ্চমূল্যের চাপে নিম্ন আয়ের মানুষ কম দামে পণ্য পাওয়ার জন্য রাষ্ট্রীয় বিপণন সংস্থা টিসিবির বিক্রয় কেন্দ্রে ভিড় জমাচ্ছেন। টিসিবি গত রমজান থেকে ফ্যামিলি কার্ডের মাধ্যমে পণ্য বিক্রি করছে। শুধু কার্ডধারীরা পণ্য কিনতে পারছেন।

তবু বাজারের এমন টালমাটাল পরিস্থিতিতে যাঁদের কার্ড নেই তাঁরাও টিসিবির দোকানের লাইনে দাঁড়িয়ে পণ্য কেনার চেষ্টা চালাচ্ছেন। আবার যাঁদের কার্ড আছে তাঁরা বলছেন, টিসিবি যেন চাল ও আলুও বিক্রি শুরু করে। যে সয়াবিন তেল, চিনি, ডাল ও পেঁয়াজ দেওয়া হচ্ছে সেগুলোর পরিমাণ যাতে বাড়ানো হয়। গত ৮ থেকে ১০ দিনের মধ্যে চাল, ডিম, গুঁড়ো দুধ, টিস্যু পেপার, মসুর ডাল, আলু ও আমদানি করা রসুনের দাম বেড়েছে। আগে থেকেই বেড়ে আছে আটা, ভোজ্যতেল, ডাল, শাকসবজি, মাছ, মাংস ও মসলার দাম। ভোজ্যতেলের দাম সম্প্রতি কিছুটা কমেছে। তবে আগে কয়েক দফা বেড়ে যাওয়া দরের চেয়ে এখনও সেটা অনেক বেশি।

টিসিবির বাজার দরের তথ্য অনুযায়ী, এক বছরের ব্যবধানে বিভিন্ন খাদ্যপণ্যের দাম ৩ থেকে ৭৫ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে। সরকারের মূল্যস্ম্ফীতির তথ্যেও বাজারের
এ চিত্র উঠে আসছে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী, গত মে মাস থেকে মূল্যস্ম্ফীতি ৭ শতাংশের ওপরে রয়েছে। মে মাসে মূল্যস্ম্ফীতি উঠেছিল ৭ দশমিক ৫৪ শতাংশে, যা গত আট বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। মূল্যস্ম্ফীতির চাপে দরিদ্ররা আরও দরিদ্র হচ্ছেন। নিম্ন আয়ের পরিবারে পুষ্টির জোগানও কমছে। এ ব্যাপারে কনজ্যুমার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্যাব) সহসভাপতি এস এম নাজের হোসাইন বলেন, ডলারের দাম বাড়ার কারণে আমদানি করা কিছু জিনিসের দাম বাড়তে পারে। তবে দেশে যেসব পণ্যের উৎপাদন হয়, সেগুলোর দাম বাড়ার পেছনে কোনো যুক্তি নেই। নিত্যপণ্যের আমদানি ও বাজার দর নিরপেক্ষভাবে তদন্ত করা দরকার।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে জানা গেছে, হঠাৎ করে গত দুই দিনে ডিমের ডজনে বেড়েছে ১০ থেকে ২০ টাকা। গতকাল প্রতি ডজন ফার্মের মুরগির ডিম ১৩০ থেকে ১৪০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। তেজগাঁওয়ের পাইকারি ডিমের আড়ত নেয়ামতপুর ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী জসীম উদ্দীন বলেন, বাজারে অন্য জিনিসের দাম বাড়ার কারণে অনেকেই ডিম বেশি কিনছেন। এতে চাহিদা বেড়েছে। তবে চাহিদা মতো ডিম আসছে না বাজারে। এছাড়া লোডশেডিংয়ের কারণে উৎপাদনও কমেছে। চার-পাঁচ দিনের ব্যবধানে গুঁড়ো দুধের দাম কেজিতে বেড়েছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। তেজগাঁওয়ের নিউজিল্যান্ড ডেইরি ব্র্যান্ডের পরিবেশক ইউনিকন ডিস্ট্রিবিউটরের কর্মী সাহাব উদ্দিন জানান, ডানোর প্রতি কেজি গুঁড়ো দুধের দাম ৪৮ টাকা বেড়েছে। টিসিবির তথ্যমতে, গত এক বছরে ১৪ থেকে ২১ শতাংশ বেড়েছে গুঁড়ো দুধের দাম।

এদিকে এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে আলুর দাম বাড়তি। কেজিতে দুই থেকে চার টাকা বেড়ে ২৮ থেকে ৩০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। টিস্যু পেপারের দাম বেড়েছে দুই টাকা করে। তেজকুনীপাড়া এলাকার তাসমি জেনারেল স্টোরের মালিক মিজানুর রহমান বলেন, সাদা টিস্যু পেপারের দাম ১৮ থেকে ২০ টাকা এবং লাল টিস্যুর দাম ২৮ টাকা ৩০ টাকা দাম নির্ধারণ করেছে কোম্পানিগুলো।

আমদানি করা চিকন মসুর ডালের দাম বেড়েছে ৫ থেকে ১০ টাকা। দুই সপ্তাহ আগে যে ডাল ১২৫ থেকে ১৩০ টাকায় বিক্রি হয়েছে গতকাল সেই ডাল বিক্রি হয়েছে ১৩৫ থেকে ১৪০ টাকা কেজি দরে। আমদানি করা রসুনের দামও বেড়েছে কেজিতে ১০ থেকে ২০ টাকা। কাঁচামরিচের কেজি ২০০ থেকে ২৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। টিসিবির দোকানে বাড়তি ভিড় :গত বুধবার থেকে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু হয়েছে। টিসিবির কার্ডধারী ক্রেতারা বিক্রির শুরুতেই পণ্য সংগ্রহ করে নিতে চাচ্ছেন। এজন্য দোকানগুলোতে ভিড় বেড়েছে। পাশাপাশি অনেক মানুষের কার্ড না থাকলেও টিসিবির দোকানে আসছেন পণ্য নিতে। তাঁরা বলছেন, বাজারে পণ্যের যে দাম তাতে তাঁরা প্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে পারছেন না। এজন্য টিসিবির দোকানে এসেছেন। অনেকেই আরও কার্ড দেওয়ার বা সাময়িকভাবে কেনার সুযোগ দেওয়ার অনুরোধ করেছেন। এদিকে যাঁদের কার্ড আছে তাঁরা বলছেন, টিসিবি যে পরিমাণ পণ্য দিচ্ছে তাতে পুরো মাস পার হয় না। এজন্য পণ্যের পরিমাণ বিশেষ করে সয়াবিন তেল, ডাল ও পেঁয়াজ বেশি পরিমাণে দেওয়ার অনুরোধ করেছেন।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক গণঅধিকার'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyganoadhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক গণঅধিকার'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক গণঅধিকার | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT